বাংলা, vivekananda lecture

অন্ধ পক্ষিসুলভ ভাবাবেগ পূর্নত্ব লইয়া যাইতে পারে না

‘হে ভারত (অর্জুন), ওঠ, হৃদয়ের এই দুর্বলতা ত্যাগ কর! উঠিয়া দাঁড়াও,সংগ্রাম কর। -এই তাৎপর্যপূর্ণ শ্লোকটি দ্বারাই গীতার সূচনা।

যুক্তিতর্ক করিতে গিয়া অর্জুনের উচ্চতর নৈতিক ধারনার প্রসঙ্গ আনিলেনঃ প্রতিরোধ করা অপেক্ষা প্রতিরোধ না করা কত ভাল, ইত্যাদি। তিনি নিজেকে সমর্থক করিতে চেষ্টা করিলেন; কিন্তু তিনি কৃষ্ণকে ভুল বুঝাইতে পারিলেন না। কৃষ্ণ পরমাত্মা, স্ময়ং ভগবান্। তিনি অবিলম্বেই অর্জুনের যুক্তির আসল রূপ ধরিযা ফেলিলেন-ইহা দুর্বলতা। অর্জুন নিজের আত্মীয়স্বজনকে দেখিয়া অস্ত্রঘাত করিতে পারিতেছেন না।

অর্জুনের হৃদয়ে কর্তব্য আর মায়ার দ্বন্দ্ব। আমরা যতই মমতার নিকটবর্তী হই, ততই ভাবাবেগে নিমজ্জিত হই। ইহাকে আমারা ভালবাসা বলি। আসলে ইহা আত্ম-সম্মোহন। জীবজন্তুর মতো আমরাও আবেগের অধীন। বৎসর জন্য গাভী প্রান দিতে পারে -প্রত্যকেকটি জীবই পারে।তাহাতে কি ? অন্ধ পক্ষিসুলভ ভাবাবেগ পূর্নত্ব লইয়া যাইতে পারে না। অনন্তচৈতন্যলাভই মানবের লক্ষ্য। সেখানে আবেগের স্থান নাই, ভাবালুতার স্থান নাই, ইন্দ্রিয়গত কোন কিছু স্থান নাই,সেখানে কেবল বিশুদ্ধ বিচারের আলো, সেখানে মানুষ আত্মস্বরূপে দণ্ডায়মান।
অর্জুন এখন আবেগের অধীন। তাঁহার যাহা হওয়া উচিত, তিনি তাহা নন, প্রজ্ঞার অনন্ত আলোক কর্মরত আত্ম-নিয়ন্ত্রিত জ্ঞানী ঋষি হইতে হইবে। হৃদয়ের তাড়নায় মস্তিষ্ককে বিচলিত করিয়া,নিজেকে ভ্রান্ত করিয়া, ‘মমতা’ প্রভৃতি সুন্দর আখ্যায় নিজের দুর্বলতাকে আবৃত করিবার চেষ্টা করিয়া তিনি শিশুর মতো হইয়াছেন, পশুর মতো হইয়াছেন। কৃষ্ণ তাহা দেখিতেছেন। অর্জুন সমান্য বিদ্যাবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষের মতো কথা বলিতেছেন, বহু যুক্তির অবতারনা করিতেছেন; কিন্তু তিনি যাহা বলিতেছেন ,তাহা অজ্ঞের কথা।
জ্ঞানী ব্যাক্তি জীবিত বা মৃত কাহারও জন্যই শোক প্রকাশ করেননা। তুমি মরিতে পার না; আমিও না। এমন সময় কখনও ছিল না, যখন আমরা ছিলাম না। এমন সময় কখনও আসিবে না, যখন আমরা থাকিব না। ইহজীবনে মানুষ যেমন শৈশবস্থা হইতে আরম্ভ করিয়া ক্রমে যৌবন ও বার্ধক্য অতিক্রম করে, তেমনি মৃত্যুতে সে দে্হান্তরে গ্রহণ করে মাত্র। জ্ঞানী ব্যক্তি ইহাতে মুহ্যমান হইবে কেন? এই যে আবেগপ্রবন তোমায় পাইয়া বসিয়াছে, ইহার মূল কোথায়? ইন্দ্রিয়গ্রামে। শীত ও উষ্ণ, সুখ ও দুঃখ সকলের অস্তিত্ব ইন্দ্রিয়স্পর্শ হইতেই অনুভুত হয়। তাহারা আসে এবং যায়। এইক্ষনে মানুষ দুঃখী, আবার পরক্ষনেই সুখী। এরূপ অবস্থায় সে আত্মার স্বরুপ উপলব্ধি করিতে পারে না।
যাহা চিরকাল আছে(সৎ), তাহা নাই-এরুপ হইতে পারে না; আবার যাহা কখনও নাই (অসৎ), তাহা আছে-এরূপ হইতে পারেনা। সুতরাং যা্হা এই সমগ্র বিশ্বকে পরিব্যপ্ত করিযা আছে, তাহা আদি অন্তহীন অবিনাশী বলিয়া জানিবে। এই বিশ্বে এমন কিছুই নাই যাহা অপরিবর্তনীয় আত্মাকে পরিবর্তিত করিতে পারে। এই সময়ে আদি ও অন্ত আছে, কিন্তু যিনি দেহের মধ্যে বাস করেন, তিনি অনাদি ও অবিনশ্বর।’
– স্বামী বিবেকানন্দ।
বাণী ও রচনা ৮ম খণ্ড

Advertisements
Moral Story, Uncategorized

Hanuman’s Ideal of Rama’s Form

From a class on BHAKTI YOGA, Jan. 20th, 1896.

Hanuman - Frank Parlato Jr.

There is a story of Hanuman, who was a great worshipper of Rama; just as the Christians worship Christ as he incarnation of God, so the Hindus worship many incarnations of God; according to them, God came nine times in India, and will come once more.

When he came as Rama this Hanuman was His great worshipper. Hanuman lived very long, and was a great Yogi, and during his lifetime Rama came again as Krishna, and he, being a great Yogi, knew that the same God had come back again as Krishna.

He came and served Krishna, but he said to Him, “I want to see that Rama form of yours”.

Krishna said.” Is not this form enough? I am this Krishna; I am this Rama; all these forms are mine”.

Hanuman said, “I know that, but the Rama form is for me. The Lord of Janaki and the Lord of Sri are the same; they are both the incarnations of the Supreme Self; yet the Lotus-eyed Rama is my all in all”.

This is Nishta; knowing that all these different forms of worship are right, yet sticking to one, and rejecting the others. We must not worship the others at all. We must not hate or criticise them, but respect them. The elephant has two teeth coming out from his mouth. These are only for show; he cannot eat with them; but the teeth that are inside are those with which’ he chews his food. So mix with all states, say yea, yea to all, but join none. Stick to your own ideal of worship.

vivekananda lecture

IDEA of God


 From Whom all beings are projected, in Whom all live, and unto Whom they all return; that is God.

#. The sum total of this whole universe is God Himself. Is God then matter? No, certainly not, for matter is that God perceived by the five senses; that God as perceived by the intellect is mind; and when the spirit sees, He is seen as spirit. He is not matter, but whatever is real in matter is He.

#. All beings, great or small, are equally manifestations of God; the difference is only in the manifestation.

#. The whole of Nature is worship of God. Wherever there is life, there is this search for freedom and that freedom is the same as God.

#. The child rebels against law as soon as it is born. Its first utterance is a cry, a protest against the bondage in which it finds itself. This longing for freedom produces the idea of a Being who is absolutely free. The concept of God is a fundamental element in the human constitution. In the Vedanta, Sat-chit-ananda (Existence-Knowledge-Bliss) is the highest concept of God possible to the mind. It is the essence of knowledge and is by its nature the essence of bliss.

#. The whole universe is a symbol, and God is the essence behind.

#. After so much austerity I have understood this as the real truth— God is present in every Jiva; there is no other God besides that. “Who serves Jiva, serves God indeed.”

Uncategorized

What is the importance of believing in Yourself? 

When you feel a little discouraged, just remember what these people accomplished when everyone else looked at them as failures. Believe in Yourself!

– Einstein was 4 years old before he could speak.

– Isaac Newton did poorly in grade school and was considered “unpromising.”

– When Thomas Edison was a youngster, his teacher told him he was too stupid to learn anything. He was counseled to go into a field where he might succeed by virtue of his pleasant personality.

– F.W. Woolworth got a job in a dry goods store when he was 21, but his boss would not permit him to wait on customers because he “didn’t have enough sense to close a sale.”

– Michael Jordan was cut from his high school basketball team.

– Bob Cousy, a legendary Boston Celtic basketball player, suffered the same fate, but he too is a Hall of Famer.

– A newspaper editor fired Walt Disney because he “lacked imagination and had no original ideas.”

– Winston Churchill failed 6th grade and had to repeat it because he did not complete the tests that were required for promotion.

– Babe Ruth struck out 1,300 times, a major league record.

A person may make mistakes, but is not a failure until he or she starts blaming someone else. We must believe in ourselves, and somewhere along the road of life we will meet someone who sees greatness in us and lets us know it.

ramana maharshi

Self Enquiry?

  • ​What is Self Enquiry?

#. What is meant by saying that one should enquire into one’s true nature and understand it?

Experiences such as, “I” went; “I” came; “I” was; “I” did; come naturally to everyone. From these experiences, does it not appear that the consciousness “I” is the subject of those various acts? Enquiry into the true nature of that consciousness, and remaining as oneself is the way to understand, through enquiry, one’s true nature.

  • Why Self-Enquiry?

#. Actions such as “going” and “coming” belong only to the body. And so, when one says, “I” went, “I” came, it amounts to saying that the body is “I”. But can the body be said to be the consciousness “I”. It cannot be, since it was not there before it was born, is made up of the five elements, is non-existent in the state of deep sleep, and becomes a corpse when dead? Can this body which is inert like a log of wood be said to shine as “I-I”?

Therefore the “I-consciousness” which at first rises in respect of the body is referred to variously as egoity, nescience, impurity, and individual soul. Can we remain without enquiring into this? Is it not for our redemption through enquiry that all the scriptures declare that the destruction of ego is release?